টেইলর ফিরলেন জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটে

36

দেশের ক্রিকেটের প্রতি অভিমান ও ক্ষোভে ছেড়েছিলেন জিম্বাবুয়ে। পেশাদারী নিশ্চয়তার আশায় পাড়ি জমিয়েছিলেন ইংল্যান্ডে। তবে গত কিছুদিনে বদলেছে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের চিত্র। গলেছে ব্রেন্ডন টেইলরের মনের বরফ। সাবেক অধিনায়ক আবার ফিরছেন জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটে।
কাউন্টি দল নটিংহ্যামশায়ার থেকে বৃহস্পতিবারই ছাড়পত্র পেয়েছেন টেইলর। জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের সঙ্গে চুক্তিও হয়ে গেছে। ৩১ বছর বয়সী ব্যাটসম্যান আগামি মাসেই আবার মাঠে নামতে পারেন জিম্বাবুয়ের হয়ে।
২০১৫ বিশ্বকাপের পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নেন টেইলর। জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের অনিয়ম ও দুর্নীতিতে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছিলেন। এর উপর ছিল নিয়মিত পারিশ্রমিক না পাওয়া। জিম্বাবুয়েকে বিদায় জানিয়ে তাই আপন করে নিয়েছিলেন কাউন্টি ক্রিকেটকে। সে সময় টেইলর বলেছিলেন, পরিবারের ভবিষ্যতের কথা ভেবে এটিকেই মনে করেছেন যৌক্তিক।
গত ৬ মাসে জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটে বদলে গেছে বেশ অনেক কিছু। নতুন কোচ হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন হিথ স্ট্রিক, যার সঙ্গে টেইলরের বেশ ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক। সবচেয়ে বড় কথা, ক্রিকেট বোর্ড পরিচালনায় ও প্রশাসনিক পর্যায়ে হয়েছে ইতিবাচক পরিবর্তন। আর্থিক ব্যাপারেও মিলেছে নিশ্চয়তা। দলও ভালো করতে শুরু করেছে। সব মিলিয়েই টেইলরের ফেরার সিদ্ধান্ত।
জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট ও টেইলরের মাঝে যোগসূত্র স্থাপনে বড় ভূমিকা ছিল সাবেক অধিনায়ক ও এখনকার নির্বাচক কমিটির আহ্বায়ক টাটেন্ডা টাইবুর। টেইলর সরাসরিই একাদশে জায়গা পেয়ে যাবেন, জানালেন টাইবু।
“ক্রিকেট জানা প্রত্যেকেই জানে যে টেইলর কোন মানের ক্রিকেটার। ওকে খুব বেশি দেখার দরকার নেই আমাদের। আমরা ওর পারফরম্যন্সে খেয়াল রাখছিলাম। অনুসরণ করছিলাম কাউন্টি সার্কিটে কেমন করে। ওকে ফিরে পেতে আমরা মুখিয়ে আছি।”
সামনেই নেদারল্যান্ডস, পাকিস্তান ‘এ’ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ জিম্বাবুয়ের। পরিবারের সঙ্গে ১০ দিনের ছুটি কাটিয়ে অনুশীলনে যোগ দেবেন টেইলর। তবে নভেম্বর-ডিসেম্বরে দক্ষিণ আফ্রিকার গ্লোবাল টি-টোয়েন্টিতে খেলতে আগে থেকেই চুক্তিবদ্ধ তিনি। হয়ত সে সময়টায় খেলতে পারবেন না জিম্বাবুয়ের হয়ে।
টেইলর ফেরার পর কাইল জার্ভিসকে ফেরাতেও চেষ্টা করছে জিম্বাবুয়ে। তরুণ এই পেসার জিম্বাবুয়েকে বিদায় জানিয়ে কাউন্টি ক্রিকেটে খেলছেন ল্যাঙ্কাশায়ারের হয়ে।

 

SHARE